শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:২৬ পূর্বাহ্ন

সম্মিলিত অবহেলা ও করোনা

রিপন রুদ্র:
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ২৮

প্রথাগত শিক্ষাব্যবস্থাও যুক্তি তৈরিতে সাহায্য করে। বিজ্ঞানীর যুক্তি পরীক্ষালব্ধ সত্যকে প্রতিষ্ঠা করে। আইনবিদ আইনের যুক্তি দিয়ে সত্য প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেন। সমাজতাত্ত্বিকরা সামাজিক সংস্কারের যুক্তি দেন। রাজনীতিকদের যুক্তি সুবিধামতো বদলায়। তা প্রতিষ্ঠা করার জন্য তর্কেরও শেষ নেই। করোনা মহামারীর গত দুই বছর রাজনীতিকদের বক্তব্য আর সিদ্ধান্ত নাগরিকদের অনেক ক্ষেত্রে হতাশ করেছে।

করোনা ভাইরাস ক্রমেই রূপ বদলায়, নতুন স্ট্রেনের ভাইরাস জন্ম নেয়। এর সংক্রমণ শক্তি সাংঘাতিক। বিশ্বজুড়ে এ ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যাই এর প্রমাণ। গোড়ায় এই সংক্রমণ থেকে মানুষ নিজেকে কীভাবে রক্ষা করবে, সেই নিয়ে দ্বিধা ছিল। তা দূর হয়েছে। মাস্ক পরা, পরিচ্ছন্নতা, পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখা- তিন মন্ত্র। বিজ্ঞানীদের এই সাবধান বাণী প্রচারের পরও দেখা গেছে, একটি বিশেষ শ্রেণি নানা অবৈজ্ঞানিক যুক্তিনির্ভর কুসংস্কারকে গুরুত্ব দিয়ে মানুষকে ‘সাহস’ জোগাচ্ছে।

টিকাগ্রহণে মানুষের আগ্রহেও দিন দিন যেন ভাটা পড়ছে। সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে হলে জাতীয়ভাবে, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নের ওয়ার্ড পর্যায়ে ব্যাপক প্রচার দরকার। দরকার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের টিকা কর্মসূচিতে যুক্ত করা। কিন্তু তা করার গরজ খুব একটা দেখা যাচ্ছে না।

টিকাদানের সাফল্যের বিষয়টি যতটা প্রচার করা হচ্ছে, বাস্তবে তা হচ্ছে না। জনস্বাস্থ্য রক্ষায় টিকাকরণ রাষ্ট্রের দায়িত্ব, প্রচারের বিষয়বস্তু নয়। টিকাকরণ সুষ্ঠুভাবে সময়মতো সম্পন্ন হবে এটাই সরকারের লক্ষ্যমাত্রা হওয়া উচিত।
আরো পড়ুন:

শেয়ার করুন

আরো খবর