শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

কাজিপুরে যমুনার পানি বিপৎসীমার ওপরে

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় শনিবার, ১৮ জুন, ২০২২
  • ২২
কাজিপুরে যমুনার পানি বিপৎসীমার ওপরে

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির প্রভাবে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে সিরাজগঞ্জের কাজিপুর পয়েন্টে পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। আর সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ পয়েন্টে বিপৎসীমার এক সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে।তলিয়ে যাচ্ছে নিচু এলাকার জমির ফসল। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন কৃষকরা।পাউবো সূত্র জানিয়েছে, শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি কাজিপুর পয়েন্টে ৩৮ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর দুপুর ১২টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ পয়েন্ট এলাকায় ৩০ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার মাত্র ১ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম জানান, যমুনা নদীর পানি এভাবে বাড়তে থাকলে নিচু এলাকায় বন্যা হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে ভাঙনসহ যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে পাউবো। আর যেসব জায়গায় ভাঙন দেখা দিয়েছে, সেখানে জিওব্যাগ ফেলা হচ্ছে।এদিকে, যমুনা নদীতে পানি বাড়ার কারণে অভ্যন্তরীণ নদ-নদী ফুলজোড়, করতোয়া, বড়াল, হুড়াসাগর, ইছামতিসহ চলনবিলে পানি বাড়ছে। এতে নিচু এলাকা ও চরাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। এসব এলাকার ফসলি জমির পাট, তিল, কাউন, বাদাম, শাকসবজিসহ বিভিন্ন ধরনের উঠতি ফসল নষ্ট হচ্ছে। এতে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষকরা।

কাজিপুরের তেকানী ইউপির চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ জানান, চরাঞ্চলের আবাদি জমি ও মাঠগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। মানুষজন গবাদি পশু নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে। তারা বন্যার আতঙ্কে রয়েছে।সদর উপজেলার কাওয়াকোলা ইউপির চেয়ারম্যান জিয়াউল হক জিয়া মুন্সী জানান, চরের নিচু জমিগুলো প্লাবিত হয়েছে। যেভাবে পানি বাড়ছে, তাতে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বাড়িগুলোতেও পানি উঠবে।

 

আরো পড়ুন :পানির নিচে সিলেট রেলস্টেশনের ১ ও ২ নম্বর পার্কিং লাইন

 

শেয়ার করুন

আরো খবর