শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন
আহতকে অ্যাম্বুলেন্স না দেওয়ার

জলঢাকা ফায়ার সার্ভিসের বিরুদ্ধে অভিযোগ

নীলফামারী প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১ মে, ২০২০
  • ১০৬

নীলফামারীতে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহতক দুই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার জন্য জলঢাকা ফায়ার সার্ভিসে গিয়ে অ্যাম্বুলেন্স চাইলেও তা না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার পর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে আহত একজনের মৃত্যু ঘটে। অপরজনকে হাসপাতালে পাঠান স্থানীয়রা। এ সময় ক্ষোভের কারণে জয়লঢাকা ফায়ার সার্ভিস অফিসে হামলাও চালান স্থানীয়রা। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে অ্যাম্বুলেন্স না দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছে জলঢাকা ফায়ার সার্ভিস।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) সকাল ৯টার দিকে জেলার জলঢাকা উপজেলার পৌর শহরের পেট্রোল পাম্প এলাকায় একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাকে দ্রুতগতিতে এসে একটি মোটরসাইকেল ধাক্কা দেয়। এসময় অটোরিকশা থেকে ছিটকে পড়ে মাঈদুল ইসলাম (৩০) নামে এক আরোহী গুরুতর আহত হন। একইসঙ্গে আহত হন মোটরসাইকেল চালক মাসুদ রানাও (৪০)।
স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য ঘটনাস্থল সংলগ্ন জলঢাকা ফায়ার সার্ভিস অফিসে যান। কিন্তু, অ্যাম্বুলেন্স না পেয়ে সেখান থেকে ফিরে আসার সময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মাঈদুল মারা যান। এ ঘটনায় ফায়ার সার্ভিস অফিসের দরজা-জানালা ও একটি গাড়ির লুকিং গ্লাস ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে ভাঙচুর করে বিক্ষুব্ধ জনতা।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে জলঢাকা ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ মমতাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি পুলিশকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এলাকার কিছু লোক লাশ বহন করার জন্য অ্যাম্বুলেন্সটি চায়। নিয়ম না থাকায় সেটি দেওয়া সম্ভব হয়নি। এতে লোকজন ফায়ার সার্ভিস অফিসে ভাঙচুর চালায়। তিনি অভিযোগ করেন, ভাঙচুরের সময় থানায় জানানো হলেও পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।
জলঢাকা থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার ও আহত ব্যক্তিকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। ফায়ার সার্ভিসের অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ফোন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নিহত মাঈদুল লালমনিরহাট জেলার আদিতমারি উপজেলার মহিষখোচা গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে ও প্রাণ গ্রুপের বিক্রয় প্রতিনিধি ছিলেন। আহত মোটরসাইকেল চালক মাসুদ রানা (৪০) জেনারেল ফার্মার রিপ্রেজেন্টিভ। তিনি এ জেলায় কর্মরত থাকলেও তার বাড়ি নওগাঁ জেলায়।

শেয়ার করুন

আরো খবর