রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন

বনানীর বকুল ভিলায় গেষ্ট হাউসের বিরুদ্ধে অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪৯
বনানীর বকুল ভিলায় গেষ্ট হাউসের বিরুদ্ধে অভিযোগ
ছবি: ক্রাইম এক্সপ্রেস

রাজধানীর বনানীর ১৫ নং সড়কের বকুল ভিলা নামের একটি ভবনে থেমে নেই অসামাজিক কার্যকলাপ। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যারা গেষ্ট হাউজটি নিয়ে অসামাজিক ও মাদক বাণিজ্য করছেন তারা প্রত্যেকেই নারী চক্রের সাথে জড়িত। পূর্বে এরা বনানী, কাওরানবাজার, আশুলিয়া এবং গাজীপুরে বিমানসহ বেশ কয়েকজন মিলে খারাপ আবাসিক হোটেল বাণিজ্য করতেন। এবার বাড়িটি ভাড়া নিয়ে গেষ্ট হাউসে রুপান্তর করে স্বর্ট গেষ্ট এবং স্কর্ট সার্ভিসের নামে চালিয়ে আসছেন বিভিন্ন অপকর্ম।

অনুসন্ধানে আরো জানা জায়, ইতিপূর্বে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে একটি ধর্ষনের ঘটনাও ঘটে গেষ্ট হাউসটিতে এবং বনানী থানায় একটি ধর্ষন মামলাও হয়। তবে কোন আবাসিক এলাকায় গেষ্ট হাউজ কিংবা আবাসিক হোটেলের অনুমোদন না থাকলেও অনেককেই ম্যানেজ করেই চলছে এধরনের গেষ্ট হাউস। সমাজের এক দুশকৃতি চক্র সমাজকে কুলশিত করতে আবাসিক এলাকাগুলোতে গেষ্ট হাউসের আড়ালে চলছে অসামাজিক বাণিজ্যসহ নানা অপকর্ম। তবে এসব প্রতিষ্ঠান বাইরে থেকে অনুমান করা যায়না ভিতরে কি হচ্ছে। কিন্তু কিছু সময় গেটের সামনে দ্বাড়িয়ে থাকলে চোঁখে পরবে তরুন-তরুনীর প্রবেশ এবং ৩০০০ থেকে ৫০০০ টাকায় রুম বরাদ্ধ। এতে আবারো ধর্ষনের আশংঙ্খা রয়েছে বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া যায়।

আবার কেউ রুম বরাদ্ধ নিলে গেষ্ট হাউজ কর্তৃক মিলবে চুক্তিভিক্তিক সুন্দরী নারী। তবে নিরাপত্তার বিষয়টি গেষ্ট হাউস কর্তৃক জানতে চাইলে তারা বলেন, আমাদের এখানে ঝামেলা হওয়ার কোন সুযোগ নেই। কারন আমার পুলিশ প্রসাশন ও পাড়া মহল্লা থেকে শুরু করে তাছাড়া সবাইকে ম্যানেজ করেই ব্যবসা করি। তাই নিরাপত্তা নিয়ে কোন চিন্তার কারন নেই। এভাবেই চলছে পুলিশের নাকের ডগায় তাদের অপকর্ম। একটি ধর্ষনের ঘটনার পরো চলছে গেষ্ট হাউজের নামে স্কর্ট সার্ভিস।

এবিষয়ে বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে আমরা যথাযথ প্রমান ও অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিব। এধরনের ব্যবসায়ীদের কোন ছাড় দেওয়া হবে না।

আরো পড়ুন: জাপান আঘাতে সক্ষম নতুন মিসাইলের পরীক্ষা চালাল উত্তর কোরিয়া

শেয়ার করুন

আরো খবর