শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৫ অপরাহ্ন

ইসরায়েল বয়কটে প্রশংসায় ভাসছেন আইরিশ লেখিকা

অনলাইন ডেস্ক:
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১
  • ২৭

নতুন প্রকাশিত বই হিব্রু ভাষায় অনুবাদ করতে চেয়ে ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন আইরিশ লেখিকা স্যালি রুনির। ইসরায়েল বয়কট আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে অনুবাদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) এক বিবৃতিতে স্যালি রুনি জানান, সম্প্রতি প্রকাশিত তাঁর বই অনুবাদে মোদান প্রকাশনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানের সিদ্ধান্তটি ফিলিস্তিনিদের পক্ষ থেকে ইসরায়েল বয়কট আন্দোলনে সমর্থনে করা নেওয়া হয়েছে।

গত ৭ সেপ্টেম্বর বের হয়েছে রুনির নতুন উপন্যাস ‘বিউটিফুল ওয়ার্ল্ড, হোয়্যার আর ইউ’। রুনির অন্যান্য বই হিব্রু ভাষায় অনূদিত হয়েছে। নতুন প্রকাশিত বইয়ের হিব্রু ভাষায় অনুবাদের স্বত্ত্ব কিনতে চেয়েছিল ইসরায়েলভিত্তিক প্রতিষ্ঠান মোদান। কিন্তু এতে রাজি হননি আইরিশ লেখিকা।

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি দখলদারিত্ব প্রসঙ্গে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে আইরিশ লেখিকা বলেন, ফিলিস্তিনিপন্থি বিডিএস (বয়কট, ডাইভেস্টমেন্ট অ্যান্ড স্যাংকশনস) আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আমি এর অনুবাদের স্বত্ত্ব ইসরায়েল ভিত্তিক কোনো প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করব না। আমি জানি, আমার সিদ্ধান্তের সঙ্গে সবাই একমত হবেন না। কিন্তু আমি এ পরিস্থিতিতে নিজের জন্য একটি ইসরাইলি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে নতুন চুক্তি করা যথার্থ মনে করি না, যারা প্রকাশ্যে বর্ণবৈষম্য থেকে নিজেদের দূরে রাখে না এবং জাতিসংঘ নির্ধারিত ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকারকে সমর্থন করে না।’

বিবৃতিতে রুনি জানিয়েছেন, তিনি তার বই হিব্রু ভাষায় অনুবাদের বিপক্ষে নন। শুধু ইসরায়েলি দখলদারিত্বের সমর্থক কোনো প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তা করতে দেবেন না। তবে তার রাজনৈতিক দর্শনের সঙ্গে মিল রয়েছে, এমন কোনো প্রতিষ্ঠান ‘বিউটিফুল ওয়ার্ল্ড, হোয়্যার আর ইউ’ হিব্রু ভাষায় অনুবাদ করলে তিনি অত্যন্ত সম্মানিতবোধ করবেন।

রুনি বলেছেন, তার নতুন উপন্যাস হিব্রু ভাষায় অনুবাদের সুযোগ এখনো উন্মুক্ত। বিডিএস আন্দোলনের শর্তগুলোর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ এমন কারও কাছে স্বত্ত্ব বিক্রির সুযোগ পেলে তিনি খুবই খুশি ও গর্বিত হবেন।

এদিকে ইসরায়েল বয়কট সমর্থন করে রুনির এমন সিদ্ধান্তে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তিনি প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন। ফিলিস্তিনিরা তাঁর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ইসরায়েল সমর্থকেরা।

ইসরায়েল বয়কট আন্দোলনের প্রচারক পিএসিবিআই এক বিবৃতিতে বলেছে, তারা স্যালি রুনির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাচ্ছে। বিপরীতে ইসরায়েলের অভিবাসী মন্ত্রী নাশম্যান শাই বলেছেন, ইহুদিবিরোধিতার নতুন ছদ্মবেশ হচ্ছে এই ইসরায়েল বয়কট আন্দোলন।

স্যালি রুনি তার উপন্যাসের জন্য একাধিক আন্তর্জাতিক পুরস্কার জিতেছেন। এর মধ্যে ২০১৭ সালে যুক্তরাজ্যে দ্য সানডে টাইমস ইয়ং রাইটার অব দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ড এবং ২০১৮ সালের কোস্টা বুক অ্যাওয়ার্ড অন্যতম। সূত্র : আলজাজিরা

আরও পড়ুন: সরকারি কর্মচারীদের হাসিমুখে সেবা দিতে হবে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

শেয়ার করুন

আরো খবর