শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন

রায় যেন দ্রুত হয়, আবরারের বাবার দাবি

নিজস্ব প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় রবিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২১
  • ৩৩
আবরার ফাহাদ রাব্বীর বাবা বরকত উল্লাহসহ অন্যরা।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বী (২২) হত্যা মামলার রায় পিছিয়েছে। আগামী ৮ ডিসেম্বর রায়ের নতুন দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত। আজ রোববার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান এই দিন নির্ধারণ করেন।

রায়কে কেন্দ্র করে আজ বিচারঙ্গনের দিকে নজর ছিল বিচারপ্রার্থীসহ সবার। এ কারণে আবরারের পরিবার ও আসামিদের অভিভাবকরাও আদালতে উপস্থিত হয়েছিলেন। তবে রায় প্রস্তুত না হওয়ায় আগামী ৮ ডিসেম্বর রায়ের নতুন দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত।

আদালতের রায় পেছানোর আদেশের পর আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আশা করেছিলাম, আজ রায় হবে। সেজন্য পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে আদালতে এসেছি। কিন্তু রায় হচ্ছে না। এ বিষয়ে কিছুই বলার নাই। তবে আশা করব, রায়টি যেন দ্রুত হয়।’

বরকত উল্লাহ আরও বলেন, ‘কুষ্টিয়া থেকে আমাদের রায় শোনার জন্য আসতে হয়েছে। আসা-যাওয়া অনেক কষ্টের। আজকে রায় হয়ে গেলে ভালো হতো।’

এদিকে আসামিপক্ষের কয়েকজন অভিভাবক আদালতের বারান্দায় অপেক্ষমান থাকলেও তারা কেউই সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে চায়নি।

এর আগে আজ সকাল সাড়ে ৯টায় কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ঢাকার কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ২২ আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাদের আদালতের হাজতখানা রাখা হয়। এরপরে বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে আসামিদের আদালতের হাজতখানা থেকে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৩ এজলাসে হাজির করা হয়।

আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষে পড়তেন। ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর দিবাগত রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের একটি কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় আবরারের বাবা মো. বরকত উল্লাহ ৭ অক্টোবর ১৯ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। ২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. ওয়াহিদুজ্জামান ২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

আরও পড়ুনঃ কুয়েতে মানবপাচার মামলায় পাপুলের ৭ বছর কারাদণ্ড

শেয়ার করুন

আরো খবর