সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০২:২৬ অপরাহ্ন

হিড়িক পড়েছে লেপ-তোষক তৈরিতে

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর, ২০২২
  • ১২

ঠাকুরগাঁওয়ে বইতে শুরু করেছে শীতের হাওয়া। আর শীত মানেই প্রশান্তির ঘুমের জন্য সবচেয়ে উপযোগী ঋতু। দিনে প্রচন্ড গরম আর ভোর রাতে শীত, বইতে শুরু করে হিমেল হাওয়া। রাতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে উঠে ঠান্ডা ।

আরও পড়ুনঃগৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

সেভাবে শীতের শুরু না হলেও জলবায়ু পরিবর্তনে অনুভূত হচ্ছে শীতের আমেজ। আর এই শীত মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতি হিসেবে ঠাকুরগাঁওয়ের মানুষের হিড়িক পড়েছে লেপ-তোষক বানাতে।

মঙ্গলবার (২২ই নভেম্বর ২০২২) পৌর শহরের বিভিন্ন স্থানে লেপ-তোষক বানানোর দৃশ্য চোখে পরে। এর মধ্যে শহরের গোধুলী বাজার, কালিবাড়ী, টেকনিকাল কলেজ মোড়, বাসষ্ট্যান্ড, নরেশ চৌহান সড়ক, ঠাকুরগাঁও রোডসহ বিভিন্ন জায়গার সামনে লেপ-তোষক বানাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। দোকানের সামনে বসে একের পর এক লেপ-তোষক বানাচ্ছেন তারা।

শহরের নরেশ চৌহান সড়কের লেপ-তোষকের দোকানদার আব্দুল জলিল জানান, প্রতিদিন তারা লেপ সেলাই করে থাকেন। সাইজ অনুযায়ী প্রতিটি লেপে তারা মুজরি পান দেড়শ থেকে ২শ টাকা। আর সেলাইকর্মীরা সবাই একই নিয়মে মুজরি নিয়ে থাকেন। দিন শেষে ৫’শ থেকে ৮’শ টাকা রোজগার হয় তাদের। তা দিয়েই সংসার চালান তারা।

তোষক বানাতে আসা শহরের টিকাপাড়া মহল্লার গৃহিনী পায়েল ইসলাম বলেন, দিনে গরম থাকলেও রাতে ঘুমানোর সময় অনেক শীত পড়ছে। তাই আগেভাগেই শীতের জন্য লেপ বানাতে আসছি। কারন শীত যতই বাড়বে এসব দোকানে ভীড় ততই বাড়বে।

শহরের কালিবাড়ী বাজারের লেপ-তোষক ব্যবসায়ি আশির উদ্দিন জানান, কিছুটা শীত অনুভ’ত হলেও এখনো ভালো করে শীত পরেনি। এর পরেও রাতে শীত করে। তাই লোকজন শীতবস্ত্রের প্রতি ঝুঁকছেন। প্রতিদিন প্রায় ১০-১২টি লেপ-তোশকের অর্ডার আসছে। শীত যতই বাড়বে অর্ডার ততই বাড়তে থাকবে বলে জানান তিনি।

শহরের কালিবাড়ি এলাকার মিন্টু তুলা ঘরের স্বত্তাধিকারী মিন্টু ইসলাম জানান, তুলা ও কাপড়ের মূল্যবৃদ্ধি পাওয়ায় গত বছরের তুলনায় এ বছর লেপ-তোষক বানাতে খরচ কিছুটা বেশি পরছে। শিমুল তুলা প্রতি কেজি ৬৫০ থেকে ৮৫০ টাকা বা এর চেয়ে বেশি, কার্পাস তুলা ১৫০ থেকে আড়াইশ টাকা, গার্মেন্টস তৈরি কালো হুলু কালা পচা তুলা ৩০ থেকে ৪০ টাকা, সাদা তুলা ৮৫ থেকে ১শ টাকায় কিনতে হচ্ছে বলে জানান তিনি। এছাড়াও কাপড়ের গজ মান অনুযায়ী প্রতি গজ ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। সব মিলিয়ে ভালো মানের একটি লেপ বানাতে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৪শ টাকার মতো খরচ পরছে। একই মানের একটি তোষকেও খরচ আসে প্রায় আড়াই হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন করিগররা।

আরও পড়ুনঃপ্রতিপক্ষের হামলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা রবিন গাঙ্গুলী জখম

শেয়ার করুন

আরো খবর